মঙ্গলবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০১৫

ফেসবুকে Unfriend করার ৫টি বিকল্প

ফেসবুকে Unfriend করার ৫টি বিকল্প


Unfriend না করেও কি করে ফেসবুকে ফ্রেন্ড দের আনফ্রেন্ডের মত করে রাখা যায় সেটাই আমি এখানে দেখাবো তার আগে কিছু কথা বলে নেই,

ফেসবুক এখন প্রতিদিনের তিনবেলা খাবারের একবেলা হয়ে গেছে বলা যায়। উঠতে বসতে আর চলতে ফিরতে ফেসবুক ছাড়া কথাই নেই। হাচি দিলেও ফেসবুলে স্ট্যাটাস চলে আসে এই মাত্র একটা জোরে শোরে হাচি দিলাম  Feeling Shordi at Bathroom। আর এধরনের অনেক বিরক্তিকর পোস্টেই ভরে থাকে আমাদের নিউজফিড। আজকাল তো নানা রকমের লিঙ্ক শেয়ার আছেই। চোদ্দ হাজার রকমের অনলাইন সো কলড পত্রিকার বেশীরভাগ নিউজ লিঙ্কগুলো ফেসবুকে আসে যার শতকরা ৮০ ভাগ বিরক্তিকর যেমন “অমুকের কাপড় টেনে ছিড়ে ফেলল তমুক” আর নিউজটার আসল ব্যাপার হলো কোন নাটকের স্ক্রিপ্টের কাহিনী অথবা “কোন ৫০ ধরনের মেয়েদের বিয়ে করা উচিৎ হবেনা” বা “বিয়ের রাতে বৌ পালালে কি করবেন।” আমাদের ফ্রেন্ড লিস্টে অনেক বন্ধু বা পেজ আছে যারা প্রতিনিয়ত এ ধরনের লিঙ্ক শেয়ার করে, অনেকে আবার ট্যাগ করেও বসে থাকে আর এগুলো নিউজফিড বা আমাদের প্রোফাইলে শোভা পায় সারাক্ষন। এগুলো আপনাদের কেমন লাগে জানিনা তবে আমার খুব বিরক্ত লাগে। মেজাজই খারাপ হয়ে যায় মাঝে মাঝে। মুলত ওয়েবসাইটের ট্রাফিক বাড়ানোর জন্য এধরনের উদ্ভট সব নিউজগুলো বাজারে অর্থাৎ নিউজফিডে আসে আর এক শ্রেনীর মানুষ হুমড়ি খেয়ে লিঙ্কে ক্লিক করে। এটাও ঠিক, একটা ভাল আর্টিকেলের চাইতে এগুলোতেই লাইক পড়ে বেশী। যাই হোক আমাদের এই পোস্টের মূল উদ্দেশ্য হলো এধরনের ঝামেলা থেকে একটু মুক্ত হবার জন্য। অথবা আজাইরা কোন ফেসবুক ফ্রেন্ড যাকে আনফ্রেন্ড করে দিলে মাইন্ড করতে পারে কিন্তু তার পোস্ট আপনার বিরক্ত লাগে। এধরনের সিচুয়েশনে আনফ্রেন্ড না করেও অন্য কিছু ব্যবস্থা করা যায়। এখন বলছি এর কিছু বিকল্প ব্যাবস্থা।

১। Hide Stories / Mute Post:

আপনার কাছে কোন একটি বিশেষ পোস্ট যদি বিরক্ত লাগে তাহলে খুব সহজেই আপনি পোস্টটি সবসময়ের জন্য গায়েব করে দিতে পারবেন আপনার নিউজফিড থেকে। এটা খুবই সিম্পল একটি ব্যাপার। যা করতে হবে তা হলো ঐ পোস্টের ডানদিকে উপরে ARROW তে ক্লিক করে  সিলেক্ট করলেই চলবে। আর চাইলে একই জায়গা থেকে আপনি রিপোর্ট ও করতে পারবেন যদি মনে হয় পোস্টটি ঠিক না বা ফেসবুকে থাকা ঠিক না। আর রিপোর্ট করলে ফেসবুক আপনাকে একটি নোটিফিকেশন পাঠাবে তার রেজাল্ট জানার জন্য।

২। নিজফিডকে একটু গুছিয়ে রাখাঃ

1.%2520hide%2520stories

উপরের ছবিতে দেখুন  এখানে আপনি যদি Organize who you see in news feed এর ক্লিক করেন, তাহলে আপনি আপনার কোন কোন ফ্রেন্ড বা কোন পেজের আপডেট আপনার নিউজফিডে রাখতে পারবেন তা নিজেই ঠিক করে নিতে পারবেন। এই জায়গায় আপনি নানা রকমের লিস্টও বানাতে পারেন যেমন আপনার ঢাকায় থাকা বন্ধুদের জন্য আলাদা লিস্ট, ফ্যামিলি মেম্বারদের জন্য আলাদা লিস্ট, ক্লাস ফ্রেন্ডের জন্য আলাদা লিস্ট ইত্যাদি।2.%2520acquaintances

৩। নিজেই ঠিক করে নিন কার কাছ থেকে কোন পোস্ট আপডেট চানঃ

এমনকি কোন ফ্রেন্ড বা পেজ থেকে আপনি কু আপডেট দেখতে চাহ সেটাও সিলেক্ট করে দিতে পারেন অনায়াসেই। তাহলে বিরক্তির কারন অনেক কমে যেতে পারে। একটা পোস্ট হাইড করার পরেই এই অপশন টা আসবে ঠিক নীচের ছবিতে যেমন দেখাচ্ছে। আমি নিশ্চিত এগুলোর সাথে আপনারা যথেষ্ট পরিচিত।3.%2520tailor%2520updates

৪। লিস্ট:

ফেসবুকে দুটি লিস্ট প্রতিটি একাউন্টে স্বয়ংক্রিয়ভাবে থাকে  Restricted এবং Acquaintances এই দুটি। কাউকে আনফ্রেন্ড না করতে চাইলে তাদেরকে এই লিস্টে ঢুকিয়ে দিন আর তাহলেও মামলা খতম। Restricted লিস্টে কাউকে দিলে সে খালি আপনার পাবলিক পোস্টগুলোই দেখতে পারবে এছাড়া আর কিছুই দেখবে না। আর Acquaintances লিস্টে আপনি ঠিক করে দিতে পারবেন কত ফ্রেন্ড আপনার পোস্ট দেখতে পারবে।2.%2520add%2520to%2520lists

৫। পোস্ট করার অপশনঃ

যে কোন কিছু পোস্ট করার সময় আপনি চাইলে প্রাইভেসী ঠিক করে দিতে পারেন পোস্ট বাটনের ঠিক পাশেই। মেনুটিতে ক্লিক করে আপনি চাইলে সিলেক্ট করে দিতে কে কে এই পোস্টটি দেখবে বা কে কে দেখবে না। বিশেষ করে এমন কোন ধরনের পোস্ট যেটা হয়তো আপনার বিশেষ কোন ফ্রেন্ডের মাথাব্যাথার কারন হয়ে থাকতে পারে।4.%2520dont%2520share%2520with
প্রাইভেসী রক্ষা করার অধিকার সবারই আছে। গোপনীয়তাও একটি মানবিক অধিকারের মত। আর নিজের প্রাইভেসী ঠিক রাখাটা সম্পুর্ন নির্ভর করে নিজের উপরে। স্যাশাল নেটওয়ার্কিং এর যুগে এই ব্যাপারগুলো খুব গুরুত্বপূর্ন। আপনার একাউন্ট থেকে যদি এমন কোন কিছু পাবলিক শেয়ার হয়ে যায় যেটা ঠিক না বা ভাল না, অথবা কোন জঘন্য বিরক্তিকর পোস্টে যদি আপনার লাইক পড়ে তখন আপনার লিস্টে থাকা ফ্রেন্ড বা ফ্যামিলি সেটা দেখতে পারে যে আপনি কিসে ক্লিক করেছেন আর এধরনের ক্ষেত্রে আপনাকে নিয়ে একটা নেগেটিভ ইম্প্রেশন কাজ করতেও পারে।
যাই হোক, নিরাপদ হোক আপনাদের ফেসবুক জীবন। আর চেস্টা করুন ফেসবুকের বাইরে আসল ফ্রেন্ড নিয়ে থাকতে। কারন ভার্চুয়াল লাইফ এক সময় বিরক্তির কারন হয়ে যাবে। যদিও ফেসবুক ছাড়া দুনিয়া অচল, কিন্তু একদিন, এই ফেসবুকের কারনে হয়তো মনে হতে পারে যে জীবনের অনেক মুল্যবান সময় নষ্ট করে ফেলেছেন এর পেছনে।
লেখাটি প্রথম প্রকাশিত এখানে
আমার সাইট এখানে 
যে কোন প্রয়োজনে ফেসবুকে আমি
আমার আরো কিছু পোষ্টঃ
পোষ্টটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

নতুন পোষ্ট আপডেট ইমেইলের মাধ্যমে জানুন

* indicates required